chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

বন্য হাতি রক্ষার ব্যর্থতা স্বীকার করে নিলেন মন্ত্রী

ksrm

নিজস্ব প্রতিবেদক:  সম্প্রতি চট্টগ্রামে বেশ কয়েকটি বন্যা হাতির মৃত্যুর পেছনে কর্মকর্তাদের ভূমিকায় সমালোচনা করে নিজের ব্যর্থতা স্বীকার করে নিলেন বনমন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন। এর জন্য সবাইকে দায় নিতে হবে বলেও জানান তিনি।

মঙ্গলবার (২১ ডিসেম্বর) চট্টগ্রামের রুবি গেইট এলাকায় বন একাডেমিতে এক অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। ৩৮তম বিসিএস উত্তীর্ণ হয়ে বন ক্যাডারে নিয়োগ পাওয়া সহকারী বন সংরক্ষকদের ওরিয়েন্টেশন কোর্সের সমাপনী হিসেব অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

এসময় মন্ত্রী বলেন, হাতি রক্ষার দায়িত্ব আমাদের। আমরা সবাই হাতি বাঁচাতে ব্যর্থ হয়েছি। সেই ব্যর্থতার দায়িত্ব আমাদের নিতে হবে। গত এক মাসে দেশে ৭ থেকে ৮টি হাতি মারা গেছে। এর দায়ভার এড়াতে পারি না।
বন্য হাতি রক্ষায় সচেতনতার ওপর গুরত্ব দিয়ে বনমন্ত্রী বলেন, হাতি ফসলের ক্ষতি করলে, তার ক্ষতিপূরণ সরকার দিচ্ছে।তাহলে কেন সে হাতি মারবে? ক্ষতিপূরণ দেওয়ার ব্যবস্থা নিচ্ছি। মন্ত্রণালয় নিচ্ছে। মানুষকে একটু বুঝিয়ে বলুন। ফসলের ক্ষতি করলে সে ক্ষতিপূরণ আমরা দিচ্ছি।আপনারা হাতি মারবেন না।হাতি মারলে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নিব।

প্রধান বন সংরক্ষক মো. আমীর হোসাইন চৌধুরী সমাপনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। এসময় পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) সঞ্জয় কমার ভৌমিক, বন অধিদফতরের উপ-প্রধান বন সংরক্ষক (শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ উইং) মাঈনুদ্দিন খান এবং চট্টগ্রাম ফরেস্ট একাডেমির পরিচালক ছানাউল্যা পাটওয়ারী বক্তব্য রাখেন।

উল্লেখ্য, গত ৩০ বছরে দেশে বন্য হাতি মারা গেছে ১৪২টি। এর মধ্যে ২০২০ সালে ২২টি হাতি মারা যায়।চলতি বছরে মারা গেছে ১১টি হাতি। এর মধ্যে নভেম্বর মাসেই মারা যাওয়া হাতির সংখ্যা আটটি। যা নিয়ে বিভিন্ন মহলে সৃষ্ট হয়ে সমালোচনা।

আরকে/নচ

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...