chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

লাইটার জাহাজ ধর্মঘট এক সপ্তাহের জন্য স্থগিত

নিজস্ব প্রতিবেদক : চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের আশ্বাসে বাংলাদেশ লাইটারেজ জাহাজ শ্রমিক ইউনিয়নের ডাকা ধর্মঘট ৭ দিনের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। বুধবার (২৪ নভেম্বর) রাতে চট্টগ্রাম বন্দর ও বাংলাদেশ লাইটারেজ শ্রমিক ইউনিয়ন’র নেতৃবৃন্দরা বৈঠক করে এই ধর্মঘট স্থগিত করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ লাইটারেজ জাহাজ শ্রমিক ইউনিয়নের সিনিয়র সহ-সভাপতি নবী আলম। তিনি চট্টলার খবরকে বলেন, বুধবার রাতে বন্দর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সৌহার্দ্যপূর্ণ আলোচনার মাধ্যমে আগামী ৭ দিনের জন্য চট্টগ্রামের আন্দোলন স্থগিত ঘোষণা করা হয়।

তিনি বলেন, বন্দর চেয়ারম্যান দেশের বাইরে থাকায় চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ লাইটারেজ শ্রমিক ইউনিয়নের সকল দাবিগুলোকে যৌক্তিক বলে স্বীকার করেন এবং চেয়ারম্যান দেশে আসার সাথে সাথে লাইটারেজ শ্রমিক ইউনিয়ন এর নেতৃবৃন্দের সাথে বৈঠক করে সকল দাবি মীমাংসা করার প্রতিশ্রুতির ভিত্তিতে বাংলাদেশ লাইটারেজ শ্রমিক ইউনিয়ন ৭ দিনের জন্য আন্দোলন স্থগিত ঘোষণা করে। সকল লাইটার জাহাজের মাস্টার ড্রাইভার ও নাবিকদেরকে পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত নৌযানের কর্মস্থানে যোগদান, লোড-আনলোড ও চলাচল করার জন্য আহবান জানিয়েছেন বাংলাদেশ লাইটারেজ শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ।

এর আগে তিনদিন আগে পতেঙ্গার চরপাড়া জেটির টেন্ডার বাতিলসহ তিন দফা দাবি জানিয়ে ৭২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়েছিল বাংলাদেশ লাইটারেজ জাহাজ শ্রমিক ইউনিয়ন। চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ যদি এসব দাবি না মানে গতকাল বুধবার রাত ১২টা থেকে চট্টগ্রামে সব ধরনের লাইটার জাহাজ চলাচল বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছিল সংগঠনটি। সংগঠনের বাকি দুটি দাবি হলো: লাইটার জাহাজের শ্রমিকদের জন্য পোতাশ্রয় নির্মাণ এবং নেতৃবৃন্দের ওপর হামলার বিচার ও হামলাকারীদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি নিশ্চিত করা।

জানা গেছে, চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ চরপাড়া জেটিটি ১ কোটি ১০ লাখ টাকা দিয়ে ইজারা দিয়েছে। এর প্রেক্ষিতে আন্দোলনে নামে লাইটার জাহাজ শ্রমিক ইউনিয়ন।

বাংলাদেশ লাইটারেজ জাহাজ শ্রমিক ইউনিয়নের অধীনে প্রায় ২ হাজারটি লাইটার জাহাজ রয়েছে। যা বন্দরের মাদার ভেসেল (বড় জাহাজ) থেকে আমদানি-রপ্তানি পণ্য লোড আনলোড করে এবং চট্টগ্রাম থেকে সারাদেশে পণ্য বোঝাই করে থাকে।

এসএএস/এমআই

এই বিভাগের আরও খবর