chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

কোনো শিশুই যেন ক্ষুধার্ত না থাকে: প্রধানমন্ত্রী

ডেস্ক নিউজ: বাংলাদেশের সব শিশু বাবা-মা, ভাই-বোন নিয়ে সুখে থাকুক সে কামনা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আমি সবসময় চাই, আমাদের ছেলেমেয়েরা যেন মা-বাবা, ভাই-বোন সবাইকে নিয়ে একটা ভালো জীবন পাক। আর কোনো শিশুই যেন ক্ষুধার্ত না থাকে। রোগে ধুকে ধুকে কষ্ট না পায়। সবার জীবনটা যেন সুন্দর হয়।

গতকাল সোমবার (১৮ অক্টোবর) রাতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট ছেলে শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিনে বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচারিত স্মৃতিচারণমূলক বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ রাসেলের জন্মের সময়কার স্মৃতিচারণ করে তার বড় বোন ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘১৭ তারিখ দিবাগত রাত দেড়টা কি দুটো, এ রকম সময়ে রাসেলের জন্ম হলো। আমাদের বড় ফুফু, মেজো ফুফু তখন আমাদের বাসায়। যখন খবরটা আমরা পেলাম তখন তো আমাদের খুশি আর ধরে না। ’

তিনি বলেন, ‘আমি যেই প্রথম কোলে নিলাম ওর মাথা ভর্তি, কালো ঘন চুল, আমার গায়ে ওড়না ছিল সে ওড়না দিয়ে মাথা মুছে, চিরুনি নিয়ে এসে ওর মাথা আচড়াতে গেলে ফুফু আমাকে ধমক দিল যে, এটুকু বাচ্চার মাথায় চিরুনি দেয় না। এত ঘন কালো চুল। এর চিরুনি দিতে হয় না, চামড়া উঠে যাবে। তখন থেকেই ও ছিল একেবারে আমাদের চোখের মণি। সবার, প্রত্যেকটা ভাই-বোনের জন্য, এ আনন্দটা ভাষায় বর্ণনা করা যায় না। ’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা এত খুশি ছিলাম এবং আমরা সর্বক্ষণ ওকে নিয়ে খেলতে… ও আস্তে আস্তে বড় হচ্ছে, প্রতি সপ্তাহে ওর একটা করে ছবি তুলতাম। দুটো অ্যালবামও করে রেখেছিলাম। ওর যে পরিবর্তনটা, বিশেষ করে তিন মাস পর পর একটা ছবি। আর সর্বক্ষণ ও আমাদের সবচেয়ে বেশি আদরের ছিল।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা ভাই-বোন সবসময় ওকে নিয়েই ব্যস্ত ছিলাম। ওর হাঁটা-বসা। ও একেকটা ধাপে একেকটা জিনিস শিখেছে, সবকিছু আমাদের সাথেই। ওর সঙ্গে একটু খুনসুটি করা, ওকে একটু আদর করা—সবকিছুর সঙ্গেই আমরা সারাক্ষণ। স্কুল থেকে এসেই হাতটা ধুয়েই আগে আমাদের কাজ ছিল রাসেলকে কোলে নেওয়া। যাওয়ার আগে রাসেলকে কোলে নেওয়া। মনে হতো, আমাদের হাতে একটা খেলার পুতুলের মতো। আমরা প্রত্যেকটা ভাই-বোনই সবসময় ওর জন্য খুবই ব্যস্ত থাকতাম।’

শেখ রাসেলের প্রতি বঙ্গবন্ধুর ভালোবাসার কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘১৯৬৪ সালের অক্টোবরে ওর জন্ম। ৬৬ সালের মে মাসে আমার আব্বা যখন ৬ দফা দিলেন। তখন তিনি খুব ব্যস্ত। যখন ফাতেমা জিন্নাহ ইলেকশনের ক্যাম্পেনিং শুরু করেন, ওই সময় তিনি কিন্তু আরেকবার গ্রেফতার হয়ে যান। কিছুদিন তাকে বন্দি করা হয়, তারপর মুক্তি পান। ৬ দফা দেওয়ায় আসলে এত ব্যস্ত ছিলেন তিনি। কিন্তু রাসেলকে প্রতি রাতে শোবার সময় নিজের হাতে রাসেলের দুধের বোতল ধরে রাখা, তাকে খাওয়ানো। আব্বা খুব চেষ্টা করতেন, আগ্রহী ছিলেন। ’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ও (শেখ রাসেল) আসলে আব্বাকে খুব বেশি পায়নি। ’৬৬ সালে ৬ দফার পর আব্বা যখন অ্যারেস্ট হয়ে গেলেন, ও তো কেবল ছোট, হাঁটা শিখেছে, কথা বলতে শিখেছে, দেখাতে হতো কারাগারে। ও এটা কিছুতেই মানতে চাইতো না। কান্নাকাটি করতো আর তখন তো ভালোভাবে কথাও বলতে পারতো না। যেদিন আমরা জেলখানা থেকে দেখা করে আসতাম সেদিন আমরা দেখতাম ও ঘুমাচ্ছে না, বিছানায় বসে বসে কাঁদতো। কেন যে কাঁদছে সেটাও বোঝা যেত না। ’

তিনি আরও বলেন, ‘ও চাইতো আমরা সব ভাই-বোন ওর কাছে চলে আসি। তো আমরা কামাল-জামাল-রেহানা আমরা সবাই ওকে ঘিরে বসতাম। ওর কান্না থামানো, ওকে দেখা। …ও যে বাবার জন্য কাঁদছে, সেটা সে বলতেও পারতো না। কিন্তু ওর যে কান্না, ওর যে কষ্ট সেটা আমরা উপলব্ধি করতে পারতাম। একটু বড় হয়ে সে আব্বা বলে ডাকবে, মা তখন বলতো, তুমি আমাকে আব্বা বলে ডাকো। মাকেই আব্বা ডাকা শুরু করলো।’

এমআই/চখ

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...