chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

সিআরবি রক্ষায় সাংবাদিক নাসিরুদ্দিন চৌধুরীর অবস্থান ধর্মঘট

নিজস্ব প্রতিবেদক: নগরের সিআরবিতে গাছ কেটে হাসপাতাল তৈরির উদ্যোগের প্রতিবাদে মাস্ক পরে এবং অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে অবস্থান ধর্মঘট পালন করেছেন প্রবীণ সাংবাদিক, বীর মুক্তিযোদ্ধা নাসিরুদ্দিন চৌধুরী।

আজ শনিবার (৩১ জুলাই) সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত বৃষ্টি উপেক্ষা করে তিনি সিআরবি এলাকায় অবস্থান নেন। এসময় তার সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ।

চট্টল ইয়ুথ কয়ার এর ব্যানারে এই প্রতিবাদ কর্মসূচিতে নাসিরুদ্দিন চৌধুরী বলেন, এখন ডিসির পাহাড়ে অক্সিজেন নেয় মুক্ত হাওয়া সেবনের মতো। এখন সিআরবিও যদি ধ্বংস হয়ে যায়, তাহলে আমাদের মুক্ত বায়ুর জায়গাটা ধংস হয়ে যাবে, চট্টগ্রামের ফুসফুস ধংস হয়ে যাবে।

এজন্য আমরা বলছি, আপনারা ঐক্যবদ্ধ হোন। চট্টগ্রামের জনগণ ঐক্যবদ্ধ হয়ে অতীতে বহু ইতিহাস সৃষ্টি করেছে। ১৯৩০ সালে মাস্টারদা সূর্য সেন বৃটিশের অস্ত্রাগার লুট করে চট্টগ্রামকে স্বাধীনের চেষ্টা করেছেন।’

তিনি বলেন, ১৯৫২ সালে ঢাকায় ছাত্র-জনতার ওপর পুলিশের গুলিবর্ষণে রফিক, জব্বার, বরকত শহীদ হওয়ার খবর শুনে রোগশয্যায় শায়িত ভাষা সংগ্রামী মাহবুব উল আলম চৌধুরী যখন লিখে ফেলেন অমর কবিতা ‘কাঁদতে আসিনি ফাঁসির দাবি নিয়ে এসেছি’-তখন সেটি ইতিহাস হয়ে যায়। কারণ সেটাই ছিল একুশের ঘটনার অভিঘাতে রচিত প্রথম কবিতা।

তিনি বলেন, ভয়াবহ দূষণের শিকার চট্টগ্রাম। সিআরবি পাহাড়ের শত শত বছরের শিরীষ গাছগুলো এক একটি অক্সিজেন তৈরির কারখানা। সিআরবিতে হাসপাতাল হলে সেই অক্সিজেন ফ্যাক্টরি ধ্বংস হয়ে যাবে। অক্সিজেনের কবর রচনা করে সিআরবিতে হাসপাতাল করতে দেওয়া যাবে না। এই অপচেষ্টা ঠেকানো গেলে সেটাও হবে চট্টগ্রামের ইতিহাস।

এসময় বক্তব্য দেন বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ গবেষণা কেন্দ্রের চেয়ারম্যান, বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা. মাহফুজুর রহমান, চবি পালি ও প্রাচ্যভাষা বিভাগের প্রফেসর ডা. জিনবোধি ভিক্ষু, ১৪ দলের নেতা ও জাসদের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ইন্দু নন্দন দত্ত, মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা জামশেদুল আলম চৌধুরী, সাবেক ছাত্রনেতা, জাসদ ও বাসদ নেতা সিরাজুল ইসলাম রাজু, প্রকাশক ও নারী নেত্রী রেহেনা চৌধুরী, সিইউজের সাবেক সভাপতি আসিফ সিরাজ, ছড়া শিল্পী ও সাহিত্যিক মোদাচ্ছের আলী, চট্টল ইয়ুথ কয়ার এর সাধারণ সম্পাদক অরুণ চন্দ্র বণিক, সাংগঠনিক সম্পাদক সুজিত দাশ অপু, বীর মুক্তিযোদ্ধা কিরণ লাল আচার্য্য, ব্যাংকার আবদুল হক ও আমজাদ হোসেন খান, আওয়ামী লীগ নেতা মোছলেহ উদ্দীন মনসুর প্রমুখ।

বাচিক শিল্পী দিলরুবা খানম ছুটির আবৃত্তি ও রবীন্দ্র সংগীত শিল্পী শীলা চৌধুরীর সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে কর্মসূচি সমাপ্ত হয়।

এমআই/চখ

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...