chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

সীতাকুণ্ডে দুইদিনে দুই মাছ শিকারির মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক : সীতাকুণ্ডে পৃথক দুই-স্থানে মাছ ধরতে গিয়ে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার (২৬ জুলাই) সীতাকুণ্ডে বঙ্গোপসাগরের তীরে ও ভাটিয়ারী লেকে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

সোমবার (২৬ জুলাই) সীতাকুণ্ড উপজেলার ভাটিয়ারী সানসেট পয়েন্ট এলাকার বাংলাদেশ মিলিটারী একাডেমির (বিএমএ) লেকে ভাড়ায় বড়শি দিয়ে মাছ ধরতে যায় মাছ শিকারি আবুল কাশেম (৪৫) নামের এক ব্যক্তি।

সকাল ৬ টার দিকে আবুল কাশেম সানসেট পয়েন্ট সংলগ্ন লেকে প্রায় ২০০ মিটার দূরত্বে বড়শি দিয়ে মাছ ধরতে যায়। সকাল ৯ টা৪০ মিনিটের সময় পানিতে থাকা তার বড়শির ছিপ মাছে টেনে পানিতে ফেলে দেয়।

এতে উপায় না দেখে তার সিট এলাকা থেকে ২৫মিটার দূরে লেকের পানিতে নেমে বড়শির ছিপটি উদ্ধার করতে যান তিনি ।

এসময় আবুল কাশেম লেকের গভীরে ডুব দিয়ে উঠতে না পেরে পানিতে তলিয়ে যায়। তখন তার সাথে সিটে থাকা মো. রবিউল আলম, মো.মনিরুল আলম ও মো.ফিরোজ মোবাইল ফোনে বিষয়টি বিএমএ কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেন। খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসেন কর্নেল নিশাদুল ইসলাম খান।

পরে সীতাকুণ্ড থানা পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসকে ডুবুরিদের খবর দিলে প্রায় পোনে দুই ঘণ্টা পর আবুল কাশেমের মৃতদেহ উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। মৃত আবুল কাশেম ভোলা জেলার মৃত মোখলেসুর রহমানের ছেলে এবং চট্টগ্রামের শেরশাহ্ এলাকার দিদারের ভাড়া বাসায় থাকেন।

অন্যদিকে গত রোববার ২৫ তারিখ দুপুর বেলায় উপজেলার কুমিরা সাগর উপকুলে অবস্থিত জেটি এলাকায় দুপুর বেলায় মাছ ধরতে যান স্হানিয় হিংগুরি পাড়ার মো.ইসমাইলের পুত্র নুর করিম।

সেখানে এক পর্যায়ে তার বড়শি পানিতে আটকে গেলে বড়শি খুঁজতে পানিতে নেমে তলিয়ে যায় মাছ শিখারী নুর করিম। পরে ফায়ার সার্ভিস, নৌ পুলিশের ডুবুরি ও সীতাকুণ্ড থানা পুলিশ দীর্ঘ ৮ ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে ঐদিন রাত ৯টার সময় নুর করিমের মৃতদেহ উদ্ধার করতে সক্ষম হন বলে জানিয়েছেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মো. মোরশেদ ।

সীতাকুণ্ড মডেল থানার ওসি আবুল কালাম আজাদ জানান, পৃথক দুই স্থানে দুই মাছ শিকারির মৃত্যু হয়েছে। কুমিরার নিহত নুর করিমের লাশ ঐদিন রাতেই তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

সোমবারে ভাটিয়ারীর লেকে নিহত মাছ শিকারি আবুল কাশেমের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। পৃথক দুটি ঘটনায় থানায় দুটি অপমৃত্যুর মামলা রুজু করা হয়েছে।

এসএএস/এএমএস/চখ

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...