chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

রাউজানে লোকালয়ে ক্ষুধার্থ বানর, ঘুরে বেড়াচ্ছে পাড়া-মহল্লা

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাউজানে বেশকিছু দিন ধরে একটি বানরকে মানুষের ঘরের আশেপাশে ঘোরাফেরা করতে দেখা যাচ্ছে। বানরটি মানুষের বাড়ি পাশে থাকা পাকা আদা পাক পাকা ফলমূল খেয়ে জীবিকা নির্বাহ করতে দেখা গেছে।

জানা গেছে, উপজেলার কদলপুর ও পাহাড়তলী ইউনিয়নের পূর্ব পাশের পাহাড়ে কয়েক হাজার বানরের একটি দল বসবাস করেন। সেখানে খাদ্যের সংকটে থাকায় হয়তো এই বানরটি সেখান থেকে প্রতিনিয়ত লোকালয়ে চলে আসে। বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায় বানরটির আচমকা উপস্থিতিতে আতঙ্কিত হচ্ছে সাধারণ মানুষ। কখনো সড়কে, কখনো বাড়ির ছাদে, নয়তো ফলফূল থাকা গাছে বসে বসে নিজের আনন্দে ফলমূল খেয়ে নিজের জীবিকা নির্বাহ করেছেন।

স্থানীয়রা বলছেন, ক্ষুধার জ্বালায় বানরটি খাবারের খোঁজে বিভিন্ন জায়গায় গেলেও উৎসুক মানুষের ভিড়ে-ভীত হয়ে আরেক এলাকায় চলে যাচ্ছে। তবে সেই কারো ক্ষতি করছে না, মানুষ তাঁকে বিরক্ত করলে সেই নিজ দায়িত্বে এলাকায় পাড়ি জমান।

জানা গেছে, ঈদের দিন ঊনসত্তর পাড়া গ্রামের বিভিন্ন স্থানে তাঁকে দেখা গেলেও, গত শনিবার কদলপুর গ্রামের ভোরম পাড়া গ্রামে বানরটি খাদ্যের খুঁজে গেলে, সেখানে যা পেয়েছে তাই খেয়ে বানরটি জীবিকা নির্বাহ করেছেন।

এছাড়াও আশপাশে এলাকায় খাবারের সন্ধানে বানরটিকে ঘুরে বেড়াতে দেখা গেছে। গত শনিবার আয়শা আকতার রিমা নামের একজন তাদের বাড়ির ছাদে বানরটি গেলে সেই ক্ষুধার্ত বানরটিকে কলাসহ বিভিন্ন ধরনের ফলমূল খেতে দিলেও সেই মনের আনন্দে ফলমূল খান।

এছাড়াও আশেপাশে থাকা ফলের গাছ থেকে কুড়িয়ে নিয়ে ক্ষুধার্ত বানরটি খাওয়ার খাচ্ছে। পরে পাশের লোকজন বানরটি দেখে চিৎকারকরলে ভয়ে বানরটি পালিয়ে যায়। তবে কয়েকটি বানর এলাকার মানুষের সাথে বসবাস করছেন। তাঁরা এলাকার মানুষের কাছে বন্ধু মতো আচরণ করছেন। তবে বানরটি খাবারের আশায় বারবার মাটিতে নেমে এলেও উৎসুক জনতার ভিড়ে-ভীত হয়ে কোনো গাছের ডালে অথবা বাড়ির ছাদে গিয়ে আশ্রয় নিতে বাধ্য হচ্ছে। বানরটি এখন পর্যন্ত কারো কোনো ক্ষতি করেনি বলে জানা গেছে।

এসএএস/এএমএস/চখ

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...