chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

চট্টগ্রামে ব্ল্যাকমেইল করে দুই নারীকে ‘ধর্ষণ-পতিতাবৃত্তি’, ৯৯৯ কল করলে ৪ যুবক ধরা

নগরীর বায়েজিদে একটি ভবন থেকে অপহৃত দুই নারীকে উদ্ধার করা হয়েছে। পুলিশ জানায়- উদ্ধার দুই নারীকে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করার অভিযোগে ওই ভবন থেকে চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গ্রেপ্তাররা আসামিরা হলেন- বায়েজিদ থানার আমিন জুটমিল এলাকার মৃত শামসু মিয়ার ছেলে মো. ইউনুছ, একই এলাকার মৃত মানিক মজুমদারের ছেলে সুজন কান্তি মজুমদার (৩৫), আব্দুল খালেকের ছলে মো. রফিকুল (২৮) ও মো. শামসু মিয়ার ছেলে মো. সাইফুল (৩০)।

গত শনিবার (১১ সেপ্টেম্বর) রাত ১০টা ৫ মিনিটে বায়েজিদ থানার পূর্ব মিরপাড়া থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বায়েজিদ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) খোরেশদ আলম বলেন, গত ১১ সেপ্টেম্বর ভুক্তভোগীর বোন ৯৯৯-এ ফোন করে বলে তার বোনকে কারা যেন তুলে নিয়ে গেছে। ৯৯৯-এ ফোন পেয়ে রাত ১০টা ৫ মিনিটে পূর্ব মিরপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে দুই নারীকে উদ্ধার করা হয়। এ সময় দুই নারীকে দিয়ে পতিতাবৃত্তি করানোর অভিযোগে চার যুবককেও গ্রেপ্তার করা হয়।

এদিকে, ভুক্তভোগীর বোন বলেন, আমার বোন গার্মেন্টেসে চাকরি করতো। রফিক নামে একব্যক্তি আমাদের পাশের বাসায় থাকে। আমাদের গ্রামের বাড়ি খাগড়াছড়ি থেকে বিয়ে করেছে সে। সেই সূত্রে সে আমাদের পূর্ব পরিচিত। সে এর আগেও আমার বোনকে ব্ল্যাকমেইল করে একাধিকবার ধর্ষণ করেছে এবং সেই ঘটনার দৃশ্য মোবাইলেও ধারণ করেছে। সেই মোবাইলের ভিডিও’র ভয় দেখিয়ে আমার বোনকে সে ব্ল্যাকমেইল শুরু করে। গত ৯ সেপ্টেম্বর আমার বোনকে তার সাথে সময় কাটানোর প্রস্তাব দেয়, নতুবা ধারণ করা ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার ‍হুমকি দেয়। সেই মোতাবেক আমার বোন তার সাথে দেখা করতে গেলে তার মুখ চেপে ধরে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায়। এ সময় আমার বোনের সাথে থাকা তার আরেক বান্ধবীকেও তুলে নিয়ে যায় রফিক ও তার সঙ্গীরা।

তিনি আরও বলেন, ঘটনার পর একজন লোক আমাদের ফোন করে জানায় আপনার বোন আতুরার ডিপো এলাকায় আছে। আমরা তাকে ওই এলাকায় অনেক খুঁজেছি। পরদিন অপহরণকারীদের একজন আমার বোনের মোবাইল থেকে ফোন করে আমার বোনের সাথে কথা বলিয়ে দেয়। মোবাইলের ওই প্রান্ত থেকে বলা হয় রফিক নামে একজন আমার বোনের সাথে জোরপূর্বক যৌন সম্পর্ক স্থাপন করছে। তাকে যদি পুলিশে ধরিয়ে দিই তাহলে ওরা আমার বোনকে ফিরিয়ে দেবে। পরদিন ঘটনাটি আমরা পুলিশকে জানালে পুলিশ অভিযান চালিয়ে একটি ভবন থেকে আমার বোনকে উদ্ধার করে। এ সময় রফিককেও আটক করা হয়। পরে আমার বোনের বান্ধবীকে আতুরার ডিপোর আরেকটি বাসা থেকে উদ্ধার করা হয়।

এই বিভাগের আরও খবর
Advertisements
×portlink